বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ১০:১৭ অপরাহ্ন

গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত থাকায় দেশের উন্নতি হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

  • আপডেট সময় বুধবার, ১ মার্চ, ২০২৩, ৪.৪৭ এএম
  • ৮২ বার পড়া হয়েছে

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, অনেক সংগ্রামের পথ বেয়ে আমরা গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছি। আর গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত রয়েছে বলেই আজকে দেশের উন্নতি হচ্ছে।

মঙ্গলবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে কিশোরগঞ্জের হাওর উপজেলার মিঠামইনে সুধী সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের মানুষের ভাগ্যের উন্নতি করা, তাদের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন করাই আমাদের লক্ষ্য। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আমাদের স্বাধীনতা এনে দিয়েছেন। একটি যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ তিনি গড়ে তুলেছিলেন। শূন্য হাতে যাত্রা শুরু করে মাত্র তিন বছর সাত মাস তিন দিন তিনি সময় পেয়েছিলেন দেশের উন্নয়ন করার। বাংলাদেশকে তিনি স্বল্পোন্নত দেশে উন্নিত করেছিলেন। কিন্তু পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট তাকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়।

তিনি বলেন, যে স্বপ্ন নিয়ে জাতির পিতা দেশ স্বাধীন করেছিলেন। সেই স্বপ্ন পূরণ করাই আমাদের লক্ষ্য। তিনি দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে চেয়েছিলেন। সেই দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফোটাব, এটাই আমার লক্ষ্য। আর সেই লক্ষ্য নিয়েই আমরা কাজ করে যাচ্ছি দেশের সার্বিক উন্নয়নের জন্য।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, নৌকায় ভোট দিয়েছে বলেই এদেশের মানুষ স্বাধীনতা পেয়েছে। নৌকায় ভোট দিয়েছে বলেই আজকে কিশোরগঞ্জ আর অবহেলিত নেই। এটি একটি উন্নত জেলা হিসেবে উন্নিত হয়েছে। নৌকায় ভোট দিয়েছে বলেই আজকে এ দেশের মানুষ শিক্ষা ও স্বাস্থ্যসেবা পাচ্ছে, ডিজিটাল বাংলাদেশ করেছি, সেই সুযোগটা সবাই পাচ্ছে। নৌকায় ভোট দিয়ে আপনারা আমাদের সেবা করার সুযোগ দিয়েছেন। তাই, আপনাদের পাশে সবসময় আমরা আছি।

তিনি বলেন, নৌকায় ভোট দিলেই এদেশের উন্নতি হয়, এটা আজকে সর্বজনবিদিত। একমাত্র আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলেই মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন হয়। আমি যখন ১৯৮১ সালে বাংলাদেশে আসি। প্রত্যন্ত অঞ্চলে ঘুরে আমি মানুষের দুর্দশা দেখেছি। পেটে খাবার নেই, পরনে ছিন্ন বস্ত্র, রোগীর চিকিৎসা নেই ধুঁকে ধুঁকে মারা যায়। গায়ে কোনো মাংস নেই, শুধু হাড় আর চামড়া। চলাচলের ব্যবস্থা নেই। একটা দুর্বিষহ জীবন ব্যবস্থা। ২১ বছর পর আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর দেশকে খাদ্যে স্বয়ংসম্পন্ন করে। এরপর আবার ক্ষমতায় আসে ওই বিএনপি-জামায়াত। তারা আবার লুটপাট শুরু করে। লুটপাট, অর্থপাচার, জঙ্গিবাদ, দুর্নীতি, সন্ত্রাস, মানুষ হত্যা আর আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের ওপরে তারা অকথ্য অত্যাচার নির্যাতন চালায়।

শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপি মানুষের ওপর অত্যাচার আর শোষণ ছাড়া আর কিছু দিতে পারেনি, পারবেও না। কারণ, যাদের হাতে এই দলের সৃষ্টি, তারা জনগণের ভোট ছাড়া অবৈধভাবে সংবিধান লঙ্ঘন করে ক্ষমতায় আসে এবং যেই ক্ষমতা উচ্চ আদালত বলেছে অবৈধ। সেই অবৈধ ব্যক্তির হাতে তৈরি সংগঠন, এরা তো ক্ষমতার উচ্ছিষ্ট বিলিয়ে তৈরি হওয়া দল। তারা জনগণ ও দেশের কথা চিন্তা করে না। তারা ক্ষমতায় আসে লুটপাট করতে। তাই যখনই তারা ক্ষমতায় এসেছে দেশের মানুষের সম্পদ লুট করেছে। এরপর বিদেশে পাচার করে এখন আরাম-আয়েশে দিন কাটাচ্ছে আর আমার দেশের মানুষ কষ্ট পায়।

তিনি বলেন, বিএনপি-জামায়াত বা ২০ দলীয় জোট যখনই ক্ষমতায় এসেছে মানুষের দুর্ভোগ বেড়েছে। আর আওয়ামী লীগ যখনই ক্ষমতায় আসে দেশের মানুষের কল্যাণ হয়, মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন হয়।

এর আগে, সকাল ১০টা ৫৫ মিনিটে হেলিকপ্টারযোগে ঢাকা থেকে মিঠামইনে পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

দীর্ঘ ২৫ বছর পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মিঠামইন উপজেলা সদরে গেলেন। এর আগে ১৯৯৮ সালে তিনি সেখানে গিয়েছিলেন। তখনকার হাওর আর বর্তমান সরকারের উন্নয়নের পর এখনকার হাওরের পার্থক্য স্বচক্ষে দেখার জন্য প্রধানমন্ত্রীর এ সফর।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2021 rudrabarta24.net
Theme Developed BY ThemesBazar.Com

sakarya bayan escort escort adapazarı Eskişehir escort