শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:১৮ অপরাহ্ন

নাসিকের নগর স্বাস্থ্য কেন্দ্র-২, গণটিকায় ভোগান্তি, ক্ষোভ

  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ১০ আগস্ট, ২০২১, ৭.৩৫ এএম
  • ৩০ বার পড়া হয়েছে

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপারেশনের ওয়ার্ড পর্যায়ে করোনাভাইরাসের গণটিকাদান কার্যক্রমে ভোগান্তি অব্যাহত। সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত লাইনে দাঁড়িয়েও টিকা পাননি অনেকেই। আর যারা পেয়েছেন রীতিমত যুদ্ধ করতে হয়েছে তাদের। চরম ভোগান্তি, হট্ট্রোগোল ছিল চোখের পড়ার মতো। এসময় অনেককেই ক্ষোভ প্রকাশ করে বলতে থাকেন সব জায়গায় স্বজনপ্রীতি, লাইনে দাড়িয়ে আছি কিন্তু লাইন ভেঙ্গে টিকা নেয়ার সুয়োগ করে দেয়া হচ্ছে। এটা অন্যায়। কোন শৃংখলা নেই। মুখ চিনে চিনে টিকা দেয়ার ব্যবস্থা করে দিচ্ছে দায়িত্বরতরা। এমন নানা অভিযোগ করেন টিকা দিতে আসা লোকজন। প্রতি ওয়ার্ডে ৬০০ টিকার ব্যবস্থাপনা থাকলেও টিকা গ্রহীতার সংখ্যা ছিল অনেক বেশি।

সোমবার (৯ আগস্ট) দুপুরে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের সিদ্ধিরগঞ্জে ১০নং ওয়ার্ডের গোদনাইল চৌধুরীবাড়িতে নগর স্বাস্থ্য কেন্দ্র-২ তে গিয়ে এমন চিত্র দেখা যায়। সকাল থেকে শত শত নারী পুরষ রাইনে দাড়িয়ে আছেন। দুপুরে অনেকটা বিরক্ত হয়ে একসাথে অনেক নারী –পুরুষ ধাক্কা ধাক্কি করে ভেতরে ঢুকেন। কারণ তাদের অভিযোগ, লাইনের পাশে দিয়ে কিছু লোক ভেতরে গিয়ে টিকা গ্রহণ করার ঘটনা ঘটে। যার ফলে সকালে এসেও টিকা নেওয়া থেকে বঞ্চিত হয়েছেন অনেকে। এ ছাড়া টিকা নিতে আসা জনগণের মাঝে ছিল না কোন সামাজিক দূরত্ব। এমনকি অনেকের মুখেই ছিল না মাস্ক। মোটকথা স্বাস্থ্যবিধির বালাই ছিল না।

জনু সরদার বলেন, সকাল ৯টায় লাইনে দাড়িয়েছি। এখন দুপুর ১টা বাজে। আমাকে ভেতরে ঢুকতে দিচ্ছে না। শেষ পর্যন্ত টিকা পাবো কি না আল্লাহ জানেন।

শিখা রানী দাস মাটিতে বসে আছেন। তিনি জানান, আমি অসুস্থতা নিয়ে সকাল ৬টায় আসছি। এখন দুপুর হয়ে গেছে। এখনো টিকা পাই নাই। পাবো কি না তাও জানি না।

যদিও নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেডিকেল অফিসার শেখ মোস্তাফা আলী এমন পরিস্থিতির বিষয়ে জানিয়েছেন, তারা ইতিমধ্যে পুলিশ প্রশাসনে চিঠি দিয়েছেন। ওয়ার্ডের টিকাকেন্দ্রে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণ করার কথা। নিয়ম মেনে টিকা দেওয়ার দায়িত্ব সিটি করপোরেশনের, শৃঙ্খলা ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব পুলিশ প্রশাসনের। সিটি করপোরেশনের প্রতিটি ওয়ার্ডে তাদের ২১ জন লোক টিকা কর্মসূচিত্বে বিভিন্ন দায়িত পালন করছে। সেই সাথে ওয়ার্ড কাউন্সিলরসহ তার নিজস্ব লোকজন উপস্থিত থাকেন। তবে দৈনিক টিকার পরিমাণের চেয়ে চাহিদা বেশি থাকায় সমস্যা হচ্ছে বলে তিনি স্বীকার করেন। টিকার কার্যক্রম কয়েকদিন চললে এই সমস্যা ধীরে ধীরে কমে আসবেও তিনি জানান।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2021 rudrabarta24.net
Theme Developed BY ThemesBazar.Com