রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:০৬ পূর্বাহ্ন

তৃতীয় দিনেও কড়াকড়ি অবস্থানে প্রশাসন ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী

  • আপডেট সময় রবিবার, ৪ জুলাই, ২০২১, ৪.২০ এএম
  • ২১ বার পড়া হয়েছে

রুদ্রাবর্তা২৪.নেট: সর্বাত্মক লকডাউনের ৩য় দিনেও নারায়ণগঞ্জে কড়াকড়ি অবস্থানে রয়েছে প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। রাস্তায় পুলিশের পাশাপাশি বিজিবি, র‌্যাব, আনসার এবং সেনা সদস্য মোতায়েন রয়েছে। বিভিন্ন পয়েন্টে মাঠে কাজ করছেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা।
সরেজমিনে নগরীতে দেখা যায়, লকডাউন কার্যকর করার জন্যে নগরীর মেট্রো হল, চাষাড়া, ২নং রেলগেইটসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে চেকপোস্টে চলছে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কড়া নজরদারি। মাস্ক ছাড়া কিংবা জরুরী কারণ ছাড়া কেউ বাইরে বের হলে চেকপোস্টগুলোতে বাধার মুখে পরতে হচ্ছে তাদের। এসময় অযথা ঘোরাঘুরির জন্যে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা কয়েকজনকে জরিমানা করেন এবং তাদেরকে সর্তক করা হয়। চেকপোস্টগুলো ছাড়াও নগরীতে লোক সমাগম নিয়ন্ত্রণে চলছে সেনাবাহিনী, বিজিবি, র‌্যাব ও পুলিশদের টহল। প্যাডেল চালিত রিক্সা ব্যতিত সিএনজি, ব্যাটারি চালিত অটোরিক্সাগুলোকে শহরের ভেতর প্রবেশ করতে দেয়া হচ্ছে না। বন্ধ আছে গণপরিবহন।
নগরীর পাশাপাশি খেয়াঘাট এলাকাতেও তৎপর ছিলো জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। শীতলক্ষ্যা নদীর দুই পাড়েই স্বাস্থ্যবিধি মেনে খেয়া পারাপারের নির্দেশান দিচ্ছেন দায়িত্বরত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা। জরুরী প্রয়োজন এবং কর্মক্ষেত্রে যারা যাচ্ছেন তাদের আইডি কার্ড ছাড়া কাউকেই যেতে দেয়া হচ্ছে না। এ কাজে প্রশাসন ও পুলিশকে সহযোগিতা করছে রোভার স্কাউট ও রেড ক্রিসেন্টের স্বেচ্ছাসেবী কর্মীরা।
এর আগে সকালে নগরীর লকডাউনের সার্বিক পরিস্থিতি পরিদর্শেন আসেন জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ। পরিদর্শনে শেষে তিনি বলেন, আপনারা জানেন যে নারায়ণগঞ্জ একটি অর্থনৈতিক সমৃদ্ধ অঞ্চল। আমাদের জেলায় প্রায় সাড়ে ২২ লাখ শ্রমিক রয়েছে। জীবন ও জীবিকাকে সমুন্নত রেখে আমরা লকডাউন প্রতিপালন করছি। আমাদের নিয়মিত পুলিশবাহিনীর পাশাপাশি সেনাবাহিনী, বিজিবি ও র‌্যাব সদস্যরা আমাদের সাথে কাজ করছে। আমরা চেষ্টা করছি সাধারণ মানুষকে নিবৃত রাখতে। আমরা কোনোভাবেই আমাদের জেলার কোনো মানুষকে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে জেল জরিমানার আওতায় আনতে চাই না। যদিও লকডাউনের গত দুইদিনে সরকারি বিধি-নিষেধ অমান্য করে চলাচল করায় প্রায় ১২০টি মামলায় ২ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। আমরা চাই যে জরুরী প্রয়োজন ছাড়া যেন তারা বাসা থেকে বের না হয়। জরুরী হলে যারা বের হবেন তারা যেন বিধি-নিষেধগুলো মেনেই বের হন।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2021 rudrabarta24.net
Theme Developed BY ThemesBazar.Com