শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ০১:৩৮ অপরাহ্ন

জ্যৈষ্ঠের আগেই বাজারে সোনারগাঁর রসাল লিচু

  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ১২ মে, ২০২২, ১০.৪৭ পিএম
  • ১৩৪ বার পড়া হয়েছে

সোনারগাঁর রসাল লিচু জৈষ্ঠ মাসের আগেই বাজারে আসতে শুরু করেছে। বাজারে আগাম আসে বলেই অন্য অঞ্চলের লিচুর তুলনায় এখানকার লিচুর কদর অনেক বেশি। তবে দাম বেশ চড়া। এ বছর খরা ও ঝড়-বৃষ্টি তেমন না থাকায় লিচুর ফলন ভালো হয়েছে। তা ছাড়া করোনার প্রাদুর্ভাব না থাকায় বাগানমালিক ও ব্যবসায়ীরা লাভবান হবেন বলে আশা করা যাচ্ছে।
কয়েকটি লিচুবাগান ঘুরে দেখা যায়, বাগানের প্রতিটি গাছে থোকায় থোকায় লিচু ঝুলছে। ঝাঁকড়া গাছের ডালে ডালে ঝুলন্ত লাল রঙের ছোট এই ফলের গুচ্ছ দেখতে বেশ মনোরম। স্থানীয় ব্যবসায়ীরা রাত জেগে পাহারা দিচ্ছেন বাগান। বাদুড় ও কাকের উপদ্রব থেকে বাঁচাতে তারা গাছের চূড়ায় ইলেকট্রিক বাতি, পলিথিন কাগজ, বাস ও টিনের তৈরি বিভিন্ন ধরনের বাজনা (ঠাঠা) লাগিয়ে বাগান পাহারা দিয়ে আসছেন।
সোনারগাঁ উপজেলা কৃষি অফিসের তথ্য মতে, সোনারগাঁ পৌরসভা, বৈদ্যেরবাজার, মোগরাপাড়া, বারদী, সনমান্দি ও সাদিপুর ইউনিয়নের বিভিন্ন স্থানে লিচুবাগান রয়েছে। তবে পৌরসভার সরদার বাড়ি, বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশন, দুলালপুর, বাড়ি মজলিশ, দীঘিরপাড়, পানাম, অর্জুন্দি, বাগমুছা, দত্তপাড়া, গোবিন্দপুর, হাতকোপা, দরপত, ছাপেরবন্ধ, গোয়ালদী, টিপরদী, হরিষপুর, ইছাপাড়া, চিলারবাগ, কৃষ্ণপুরা, হাঁড়িয়া, পানাম গাবতলী, ষোলপাড়া ও ভট্টপুর এলাকায় উৎকৃষ্ট মানের লিচুর চাষ হয়।
লিচুচাষিরা জানান, সোনারগাঁয়ে বর্তমানে কদমী, মোজাফফরপুরী, চায়না-৩, এলাচি ও পাতি এই পাঁচ ধরনের লিচুর চাষ হয়ে থাকে। তবে কদমী লিচু চাষের প্রতি চাষিদের আগ্রহ বেশি। প্রতিবছর একেকটি বাগান ৩ থেকে ৪ লাখ টাকায় বিক্রি হয়। তাই কোথাও একটু খালি জায়গা পেলেই চাষিরা সেখানে কদমী লিচুর গাছ লাগান বা বাগান তৈরি করেন।
একসময় শখের বসে বাড়ির আশপাশে লিচুগাছ লাগানো হতো। এখন তা বাণিজ্যিকভাবে নিচু জমি ভরাট করে লিচুবাগান তৈরি করা হচ্ছে। বাড়ির আঙিনায় ও কৃষিজমির পাশেও লিচুর চাষ করছেন অনেকেই। লিচুর মধ্যে সবার আগে বাদামি (পাতি) লিচু পাকে।
এরপর পর্যায়ক্রমে অন্যান্য লিচু পাকতে শুরু করে। স্বাদে ও রসে পাতি লিচুর কদর রয়েছে বেশ। সোনারগাঁয়ে ছোট-বড় মিলিয়ে তিন শতাধিক লিচুবাগান রয়েছে। এসব বাগানের বেশির ভাগেই কদমী লিচুর চাষ হয়।
লিচুবাগান মালিক সাইফুল ইসলাম জানান, সোনারগাঁয়ে বিভিন্ন প্রজাতির লিচুর চাষ হলেও কদমী লিচুর চাষে অধিক মুনাফা পাওয়া যায়।
সোনারগাঁ পৌরসভার পানাম এলাকার লিচুবাগান মালিক কামাল হোসেন বলেন, আমার ৩০ শতাংশ জমিতে ২৭টি লিচুর গাছ। অন্যান্য বছরের তুলনায় এ বছর ভালো ফলন হয়েছে।
লিচু ব্যবসায়ীরা জানান, বর্তমানে বাজারে পুরোপুরিভাবে পাতি লিচু নেমেছে। রাজধানী ঢাকা ছাড়াও বিভিন্ন জেলায় এখানকার লিচু নিয়ে যাচ্ছেন পাইকারি ব্যবসায়ীরা। এখন প্রতি হাজার পাতি লিচু বিক্রি হচ্ছে তিন হাজার টাকায়। আর কদমী লিচু বিক্রি হচ্ছে প্রতি হাজার সাড়ে ৪ হাজার থেকে ৫ হাজার টাকায়।
সোনারগাঁ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মনিরা আক্তার জানান, এ বছর সোনারগাঁয়ের লিচুর ফলন বেশ ভালো হয়েছে। আশা করা যায় লিচুর বাগানমালিক ও মৌসুমি ব্যবসায়ীরা এবার বেশ লাভবান হবেন।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2021 rudrabarta24.net
Theme Developed BY ThemesBazar.Com

sakarya bayan escort escort adapazarı Eskişehir escort